মঙ্গলবার, ১৮ Jun ২০২৪, ০৮:২২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
ব্রেকিং নিউজ টঙ্গী স্টেশন রোড ফ্লাইওভার এর উপরে বেপরোয়া গতিতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত তিন কলকাতা আঞ্চলিক মহেশ্বরী সভা ও সম্মাননা প্রদান এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান.. বর্তমান সরকার অবাধ তথ্য প্রবাহে বিশ্বাসী: শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বেগম শামসুন নাহার এমপি “ঈদুল আজহার ত্যাগের মহিমায় ও সন্তুষ্ট সর্বময় সৃষ্টিকর্তার” দুমকীতে জমিজমার বিরোধে অন্তঃসত্ত্বা,শিক্ষিকাকে মারধরে তিনজন আহত চার দিনের মাথায় আবারও ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, কসবা আ্যক্র প্পালিস মলে তৃতীয় ও চতুর্থ তলে দুমকিতে ঈদ উল আযহা ঘনিয়ে আসায় জমতে,শুরু করেছে পশুর হাট বাড়ছে ক্রেতা সমাগম ঈদে নারীর টানে ঘড় মুখো মানুষের নিরাপদ যাত্রা নিশ্চিত করতে নিরলস কাজ করছে গাইবান্ধা জেলা পুলিশ উত্তরা পশুর হাটে চাঁদাবাজিকালে গ্রেফতার ৪ বেলদা গঙ্গাধর একাডেমিতে, পড়ুয়াদের জন্য পরিশ্রুত ঠান্ডা পানীয় জলের মেশিন বসলো..

বন্ধুকে বাঁচাতে গিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের লেকে ডুবে দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু

নিউজ দৈনিক ঢাকার কন্ঠ 

মোঃ শাহাজান ইসলাম গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি:

 

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) লেকে ডুবে দুই ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (১ আগস্ট) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

 

মৃত দুই শিক্ষার্থী হলেন- তাসপিয়া জাহান রিতু (২০) ও অনন্যা হিয়া (২০)। তারা দুজনই পরিবেশ বিজ্ঞান ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, রিতুর বাড়ি বাগেরহাট জেলার ফকিরহাটে ও রিয়ার বাড়ি খুলনা সদরে। তারা দুজনে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে গোবরা এলাকায় মেসে থাকতেন।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, দুই বন্ধু
হিয়া ও রীতু বৃষ্টিতে ভিজছিলেন। হঠাৎ লেকে পা পিছলে পড়ে যাওয়ায় সাঁতার না জানা হিয়াকে লেকে ডুবতে দেখে রিতু এগিয়ে আসেন। একপর্যায়ে দুজনই ডুবে যান। ২০-২৫ মিনিট খুঁজে অন্য শিক্ষার্থীরা তাদের উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক কাজী ইসমাইল হোসেন তাদের মৃত্যু নিশ্চিত করেন।

এদিকে এই মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উদাসীনতার অভিযোগ একাডেমিক ভবন প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টার সচল থাকলেও সেখানে নেই নুন্যতম চিকিৎসা ব্যাবস্থা। বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাম্বুলেন্সে নেই অক্সিজেন ব্যবস্থা। তারা আরও বলেন অ্যাম্বুলেন্সে ঘখন আমরা তুলেছি তখন তারা সুস্থ ছিলো কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাম্বুলেন্সে অক্সিজেন ব্যাবস্থা না থাকা ও প্রশাসনের অবহেলার কারনে দুই ছাএীর মৃত্যু হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাানের উদাসীনতায় এই মৃত্যুর জন্য দায়ী এমনটা অভিযোগ করে শিক্ষার্থীরা একাডেমিক-প্রশানিক ভবনে তালা ঝুলিয়েছে কঠোর অবস্থান নিয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

দৈনিক ঢাকার কন্ঠ
© All rights reserved © 2012 ThemesBazar.Com
Design & Developed BY Hostitbd.Com